জাতীয়বাংলাদেশ ক্রিকেট

“বিশ্বকাপে বাংলাদেশের লক্ষ্য সেরা ক্রিকেট খেলা”

আগামী ১৬ই অক্টোবর অস্ট্রেলিয়ায় শুরু হতে যাচ্ছে টি-টুয়েন্টি বিশ্বকাপ। তবে বিশ্বকাপের পূর্বমূহুর্তে অজিদের পার্শ্ব দেশ নিউজিল্যান্ডে অবস্থান করছে বাংলাদেশ দল। সেখানে নিউজিল্যান্ড ও পাকিস্তানের সাথে ত্রি-দেশীয় সিরিজ খেলে বিশ্বকাপের গন্তব্যে পৌঁছাবে বাংলাদেশ।

বিশ্বকাপের আগে প্রায় একই কন্ডিশনে দুইটি শক্তিশালী দেশের বিপক্ষে খেলাটা বাংলাদেশের জন্য প্লাস পয়েন্ট। টাইগারদের বিশ্বকাপ প্রস্তুতিতেও এই সিরিজ ব্যাপক ভূমিকা রাখবেন। তবে বিশ্বকাপের আগে এই সিরিজে ক্রিকেটারদের কোন চাপ দেওয়া হবেনা বলে জানান নির্বাচক হাবিবুল বাশার।

বুধবার (৫ অক্টোবর) গণমাধ্যমের মুখোমুখি হয়েছিলেন নির্বাচক সুমন। আসন্ন ত্রিদেশীয় সিরিজ ও বিশ্বকাপ নিয়ে নানান প্রশ্নের উত্তর দিয়েছেন তিনি। বিশ্বকাপে ভালো করার জন্য ত্রিদেশীয় সিরিজের প্রস্তুতিকে বড় করেই দেখছেন এই নির্বাচক।

বাশার বলেন, “এই সিরিজটি অনেক গুরুত্বপূর্ণ। বিশ্বকাপের আগে সারাবছর যা করেছেন তারচেয়ে ঠিক বিশ্বকাপের আগে কী করছেন সেটা বেশি গুরুত্বপূর্ণ। বিশ্বকাপের সময় দল, খেলোয়াড়েরা কেমন ফর্মে আছে তা গুরুত্ব বহন করে। একটা খেলোয়াড় সারাবছর ফর্মে থাকে কিন্তু বিশ্বকাপের আগে ফর্ম হারিয়ে ফেলে- এমন অভিজ্ঞতা আমাদের আগে হয়েছে। তাই আশা করব, এই সিরিজটি দল ও ব্যক্তিগতভাবে যেন আমরা (বাংলাদেশ) ভালো খেলতে পারি। তাহলে সেটি অবশ্যই বিশ্বকাপে অনেক সাহায্য করবে।”

তিনি আরও যোগ করেন, “একটা ভালো সুবিধা হয়েছে যে কন্ডিশন একই (অস্ট্রেলিয়া ও নিউজিল্যান্ডের)। আমাদের দুই প্রতিদ্বন্দ্বী দলও খুব ভালো, বিশ্বকাপ জয়ের দাবিদার তারা। এই সিরিজ খেলে বিশ্বকাপে গেলে আমাদের প্রস্তুতি খুব ভালো হবে।”

উদ্বোধনী জুটি নিয়ে বাশার বলেন, “শান্ত আছে ওপেনার হিসেবে। টিম ম্যানেজমেন্টের অবশ্যই উচিত এই সিরিজেই সেরা একাদশ তৈরি করে ফেলা যে বিশ্বকাপে কাদের খেলব। বিশ্বকাপে তো আর পরখ করার সুযোগ থাকবে না। টিম ম্যানেজমেন্ট দেখবে অন্য কাউকে ওপেনিংয়ে নেওয়া যায় নাকি এই ওপেনারদের নিয়েই বিশ্বকাপে যাবে। এই বিশ্বকাপে যারা টপ অর্ডারে খেলবেন, তারাই হয়ত বিশ্বকাপেও খেলবেন।”

সবাইকে নির্ভার হয়ে খেলার লাইসেন্স দেওয়া হয়েছে বলেও নিশ্চিত করেন তিনি, “যদি চোটে পড়ে কেউ তাহলে তো পরিবর্তন করা লাগবেই। আমাদের হাতে সুযোগ আছে। এখনো এসব নিয়ে আলাপ করিনি আমরা। আমরা চাচ্ছি, যারাই খেলুক, তারা নির্ভার হয়ে খেলুক। এখন কেউ পারফরম্যান্সের বা দলে সুযোগ পাওয়ার চাপ নিক, তা আমরা চাই না। সবাই নির্ভার হয়ে খেললেই মনে হয় আমরা সেরা ক্রিকেটটা খেলতে পারব।”

বিশ্বকাপে বাংলাদেশ দলের লক্ষ্য নিয়ে বাশার জানান, “লক্ষ্যহীন যাত্রা না। আমাদের লক্ষ্য হচ্ছে সেরা ক্রিকেটটা খেলা। যদি আমরা বলি যে আমরা এই টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের চ্যাম্পিয়ন হতে চাই, সেটা আসলে বাস্তবতায় চাপ তৈরি করে। আমরা দলের মধ্যে একটা ট্রেন্ড চালু করতে চাচ্ছি যে ভয়ডরহীন খেলতে চাই। আমরা ফ্রি, খোলামেলা ক্রিকেট খেলতে চাই। লক্ষ্য যেটা আছে তা মনের ভেতরেই থাক। দেখা যাক কী হয়!”

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button